blackmail

ব্লাকমেইলের শিকার মিম!

Sharing is caring!

মিমের এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল দিয়েছে। মিম ভাল ফলাফল করায় তার বাবা তাকে একটি এন্ড্রয়েড মোবাইল কিনে দেন। মিম তার বন্ধুদের সহায়তায় ফেইসবুক একাউন্ট খুলে চালানো শুরু করলো।সে কলেজে ভর্তি হলো। কলেজে ভর্তি হবার পর সে নিয়মিতই কলেজ যেত।

একদিন তাহসিন নামের একজন ছেলের মিমকে ভালো লেগে গেল। মিম এর ও একটা সময় তাকে ভালো লাগতে শুরু করলো।তাদের মধ্যে ফেইসবুকে যোগাযোগ হল। তারা আস্তে আস্তে অন্তরঙ্গ হতে লাগল।

একটা সময় সেই অন্তরঙ্গতা প্রেমে পরিণত হলো। বেশ কয়েক মাস চলল তাদের প্রেম। একটা সময় ছেলেটা মিমকে ফেইসবুকে খোলা ছবি দিতে বলল। মিম প্রথমে দিতে না চাইলেও পরবর্তীতে ছেলের জোরাজুরিতে দেখেই ডিলিট করে দেবার শর্তে দিল।তারপর থেকেই ছেলেটার মধ্যে পরিবর্তন লক্ষ্য করে মিম। ছেলেটার ব্যবহার রুক্ষ হতে লাগল।

একটা সময় ছেলেটা মিমকে শারীরিক সম্পর্কের জন্য জোর করতে শুরু করল। মিম এতে কোনভাবেই রাজি হয়না। তখন ছেলেটি মিমকে সেই ছবিগুলো ইন্টারনেটে ছেড়ে দেবার হুমকি দেয়। মিম তখন তার ভাইয়ার সাথে সব শেয়ার করল।

blackmail

তখন তার ভাইয়া সাইবার টিনস এ অভিযোগ জানালো। সাইবার টিনস ও পুলিশ যৌথভাবে ছেলেটিকে খুজে বের করে।ছেলেটির ফোন এ মিমসহ অনেক মেয়ের ছবি পাওয়া যায়। তারা ছেলেটির ফোন থেকে ছবিগুলো ডিলিট করে এবং তাকে কিছুদিন সংশোধনাগারে রাখা হয়। সাইবার টিনস মিমসহ সব ভুক্তভোগী দের তাদের ভুল সম্পর্কে অবহিত করল এবং সাইবার বুলিং থেকে বেচে থাকার কৌশল শিখিয়ে দিল। 

Leave a Comment